সৈকতে ভেসে আসল হাজার হাজার মৃত জেলিফিশ

0 ৬৯

নিজস্ব প্রতিবেদক,

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে জোয়ারের সঙ্গে ভেসে আসছে হাজার হাজার মৃত জেলিফিশ। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কলাতলী পয়েন্টে বালিয়াড়িতে আটকে পড়ে আছে মরা জেলিফিশগুলো।
বুধবার সন্ধ্যা সৈকতের কলাতলী পয়েন্টে হাজার হাজার মরা জেলিফিশ বালুতে আটকে থাকতে দেখা গেছে। এসব মাছের মধ্যে কোনোটা আকারে ছোট, কোনোটা বড়। দেখতে অনেকটা অক্টোপাসের মতো। তবে এগুলো কী কারণে মারা যাচ্ছে এর সঠিক কারণ কেউ বলতে পারছে না। মৃত্যুর কারণ বের করতে কাজ করছে একাধিক বৈজ্ঞানিক সংস্থা।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কলাতলী পয়েন্ট সুগন্ধা পর্যন্ত ২ কিলোমিটার জোয়ারের পানির সঙ্গে অসংখ্য মরা জেলিফিশ ভেসে এসে আটকা পড়েছে। মরা এই জেলিফিশগুলো ঘিরে আছে উৎসুক পর্যটকরা।

স্থানীয় জেলেদের কাছে জেলিফিশ সাগরের ‘লোনা’ হিসেবে পরিচিত। গভীর সমুদ্রে জেলেদের জালে এসব জেলিফিশ আটকা পড়ে মারা যেতে পারে বলে ধারণা স্থানীয়দের।

সী সেইফ লাইফ গার্ড সংস্থা সিনিয়র লাইফ গার্ড কর্মী জয়নাল আবেদীন ভুট্টো বলেন, হাজার হাজার মরা জেলিফিশ ভেসে এসেছে। কয়েক মাস না পার হতেই আবারও ভেসে আসছে। এই জেলিফিসগুলো সাধারণত হাত দিয়ে ধরলে চুলকাই। পর্যটকরা না বুঝে ছবি তুলতে গিয়ে এসব ভুল করে পরে পুরো শরীর চুলকানো শুরু হয়।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার বলেন, এই সময়ে জেলিফিশগুলো মরার সিজন নয়। হয়ত জেলিফিশ উপকূলের কাছাকাছি এসে জেলেদের জালে আটকা পড়েছিল। পরে জেলেরা জেলিফিশগুলো ফেলে দেয়ায় মরা মাছ সৈকতের বেলাভূমিতে আসতে শুরু করেছে।

বোরির কেমিক্যাল ওশানোগ্রাফি বিভাগের জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ তরিকুল ইসলাম জানান, ভেসে আসা জেলিফিশে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।
লোবোনিমুইডিস রোবোস্টাস বা সাদা নুইন্না প্রজাতির এই জেলিফিশের সংস্পর্শে গেলে কোন ধরণের ক্ষতি হয়না। তবে আরো বিস্তারিত গবেষণার জন্য তারা নমুনা সংগ্রহ করছে। তরিকুল বলেন, প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে, প্রাকৃতিক ভাবেই এসব জেলিফিশ ভেসে এসেছে সৈকতে। এর আগে গেলো বছরের নভেম্বর ও আগস্ট মাসে আরো দুই দফা কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বিপুল সংখ্যক জেলিফিশ ভেসে এসেছিল।

রিপ্লাই করুন

Your email address will not be published.