বঙ্গোপসাগরকে ভিত্তি করে সুনীল অর্থনীতি বিনিয়োগ ও প্রবৃদ্ধি অর্জনের সম্ভাবনাময় খাত

0 ৬৬

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

কক্সবাজার কেন্দ্রিক সুনীল অর্থনীতির বিকাশের লক্ষ্যে কউক ও জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল, কক্সবাজারের উদ্যোগে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার (২১ অক্টোবর) সকাল ৯টায় কউক এর পাল্টিপারপাস হলরুমে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারের প্রতিপাদ্য ছিল ‘Unlocking Bangladesh’s Potentials of Blue Economy.’ 

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর (অব.) মোহাম্মদ নুরুল আবছারের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল। 

তিনি বলেন, কক্সবাজার, তার বিস্তৃত উপকূলরেখা এবং সমৃদ্ধ সামুদ্রিক সম্পদসহ, অব্যবহৃত সম্ভাবনার আলোকবর্তিকা হিসাবে দাঁড়িয়ে আছে। আমাদের জেলা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং অর্থনৈতিক সম্ভাবনার এক অনন্য মিশ্রণের অধিকারী। সুনীল অর্থনীতির সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে আমরা আমাদের জনগণের জন্য আরও সমৃদ্ধ ভবিষ্যত তৈরি করতে পারি। উক্ত আলোচনাসভার উদ্যোগটি অনেক সুযোগের প্রতিশ্রুতি দেয়, যেমন আধুনিক আধুনিক মৎস্যসম্পদ ব্যবস্থাপনা, পর্যটনের সমৃদ্ধি, বন্দর উন্নয়ন, টেকসই উন্নয়ন, উদ্ভাবন ও বিনিয়োগ, সংশ্লিষ্ট শিল্পের অগ্রগতি ও সংযোগের ক্ষমতায়ন এবং সর্বোপরি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সংযোগ ব্যাবস্থা। সঠিক নীতি ব্যবস্থাপনা এবং বিনিয়োগ এর কার্যকর প্রয়োগ নিশ্চত করা গেলে ২০১৯ ইং সালে বিশ্বব্যাংক এর হিসেবমতে সম্ভাব্য বাংলাদেশের

সুনীল অর্থনীতি ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) বার্ষিক অতিরিক্ত ৬.০০ বিলিয়ন ডলার অবদান রাখতে পারে, যা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির অপার সম্ভাবনার ইঙ্গিত দেয়া। সকলের জন্য একটি সমৃদ্ধ এবং টেকসই ভবিষ্যত তৈরি করতে কক্সবাজারের সম্ভাবনাকে এবং সর্বোপরি সুনীল অর্থনীতি কাজে লাগাতে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করতে হবে। 

মোহাম্মদ নুরুল আবছার বলেন, বাংলাদেশের বিস্তৃত উপকূলরেখা, বঙ্গোপসাগর প্রসার, ব্লু ইকোনমি প্যারাডাইমের মধ্যে অব্যবহৃত সম্ভাবনার ভান্ডার। সমুদ্রের সম্পদের টেকসই ব্যবহারের উপর কেন্দ্রীভূত হলো সুনীল অর্থনীতি। এটি আমাদের বেড়ে ওঠার দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে পুরোপুরি সামঞ্জস্যপূর্ণ। বিশেষ করে আমাদের ক্রমবর্ধমান পর্যটন খাতের প্রেক্ষাপটে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। আমাদের উপকূলীয় অঞ্চল, বিশেষ করে কক্সবাজার, শুধুমাত্র তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যই নয়, এর প্রচুর সম্পদের জন্যও বিখ্যাত, যার মধ্যে রয়েছে মৎস্য ও জলজ চাষ এবং শীঘ্রই ক্ষণকালের বাণিজ্য এবং অবশ্যই পর্যটন, এসব আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা টেকসই পর্যটনের উপর অনেক ফোকাসসহ আমাদের ব্লু ইকোনমির অপার সম্ভাবনাকে আনলক করতে উদ্ভাবনী কৌশল এবং সহযোগী অংশীদারিত্ব খুঁজি। 

কউক চেয়ারম্যান বলেন, এই সেমিনারের উদ্দেশ্য হলো- আমরা আমাদের চিন্তা শেয়ার করার জন্য সুনীল অর্থনীতি এবং টেকসই পর্যটনের সাথে সংযুক্ত বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞ এবং চিন্তাশীল নেতৃবৃন্দের একটি বিশিষ্ট প্যানেল সংগ্রহ করেছি। সহযোগী নেটওয়ার্কিংয়ের ক্ষেত্রে আমাদের সুনীল অর্থনীতি উদ্যোগ এবং পর্যটন শিল্পের জন্য এই সেমিনারসহ বিভিন্ন সেক্টরের স্টেকহোল্ডারদের একসঙ্গে অগ্রসর হওয়ার জন্য সহযোগিতামূলক পথ খোঁজা। উদ্ভাবন এবং বিনিয়োগের গুরুত্বের উপর জোর দিয়ে, আমরা আমাদের সামুদ্রিক সম্পদ এবং পর্যটন সম্ভাবনাকে অপ্টিমাইজ করার জন্য কৌশল, দায়িত্বশীল এবং টেকসই উন্নয়নের নীতিগুলিকে অবিচলিতভাবে সমুন্নত রাখা। 

তিনি আরও বলেন, আমাদের একটি সক্ষম পরিবেশের প্রয়োজন যা ব্লু ইকোনমির বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করে এবং বাংলাদেশে আমাদের পর্যটন খাতের টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করে। এসব বাস্তবায়নে আমাদের সম্মিলিতভাবে রূপান্তরমূলক কর্মকাণ্ডের পথ প্রশস্ত করতে হবে। যা আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, আমাদের অমূল্য প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরক্ষণ এবং আমাদের উপকূলীয় সম্প্রদায়ের জীবনযাত্রার মান উন্নত করবে। মনে রাখতে হবে আমাদের সমৃদ্ধির দিকে পথ নির্ধারণ করার ক্ষমতা রয়েছে, যা বাংলাদেশের জন্য সুস্পষ্ট এবং সুনীল ভবিষ্যত এবং পর্যটন খাতে গুরুত্বপূর্ণ এবং দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করে।

সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান ড. কে এম আজম চৌধুরী, বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট, ওশানোগ্রাফি বিভাগের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রধান জিওলজিক্যাল মো. জাকারিয়া, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুর রহমানসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

রিপ্লাই করুন

Your email address will not be published.